Text size A A A
Color C C C C
পাতা

অফিস সম্পর্কিত

  

  দেশের দক্ষিণ পূর্ব সমূদ্রের কোল ঘেষে কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের অবস্থান। এর উত্তরে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগের বনাঞ্চল, পূর্বে বান্দরবান পাবর্ত্য জেলার অশ্রেণীভুক্ত বনাঞ্চল ও নাফ নদী দিয়ে বিভক্ত বাংলাদেশ ও মায়ানমারের আত্মর্জাতিক সীমানা এবং দক্ষিণ ওপশ্চিমে বঙ্গোপসাগর। এ বন বিভাগের সদর দপ্তর কক্সবাজার শহরের সার্কিট হাউজ রোডের উত্তর প্রান্তে অবস্থিত। মোট বন  ভুমির পরিমান ৮৬৪৬৫.৯২ একর। এ বন বিভাগের সূচনা খুজতে গেলে অনেক পিছনে যেতে হবে। ১৮৬২ সালে পাবর্ত্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের অধীন বন রাজস্ব আদায়ের জন্য বিভিন্ন স্থানে টোল ষ্টেশন স্থাপন করা হয়। তৎকালীন বৃটিশ সরকার কর্তৃক বৃহত্তর পাবর্ত্য চট্টগ্রামের ৬৮৮২.০ বর্গমাইলে মধ্যে ৫৬৭০.০বর্গ মাইল এলাকা সরকারী বনাঞ্চল হিসেবে ঘোষনার মাধ্যমে এ অঞ্চলের বন ব্যবস্থাপনার সূচনা হয়। এ সময় ফরেষ্ট টোল ষ্টেশন গুলোর দায়িত্ব রাজস্ব বিভাগ থেকে বন বিভাগের নিকট হস্তান্তর করা হয়। ১৮৯৩ সালে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রামের (কক্সবাজার সহ)বনাঞ্চল নিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ বন বিভাগ প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৯০৯ সালে এ বনবিভাগকে বিভক্ত করে পাবর্ত্য চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম বন বিভাগ প্রতিষ্ঠা করাহয়।  সে সময় কক্সবাজারের বনাঞ্চল চট্টগ্রাম বন বিভাগের আওতায় উপ বিভাগের(Sub Division) নিয়ন্ত্রনাধীন ছিল।বন ব্যবস্থাপনা আরো নিবিড় ভাবে সম্পাদন করার উদ্দেশ্যে ১৯২০ সালের ১লা এপ্রিল চট্টগ্রাম বন বিভাগকে দু’ভাগে বিভক্তকরে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার বন বিভাগের সৃষ্টি করা হয়। সর্বশেষ ২০০১ সালে কক্সবাজার বন বিভাগকে বিভক্ত করে কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগ প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৯ জুলাই ২০০১ইং তারিখ থেকে কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের অফিসিয়াল কার্যক্রম শুরু করা হয়।  

  

ছবি